All Public examination Results

চড়ুইপাখি মরে গেলে ক‍‍`দিন খায়নি পৃথুলা…..

নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে নিহতদের মধ্যে রয়েছেন বিমানের কো-পাইলট পৃথুলা রশীদও। আর এই ফ্লাইটটি ছিল তার দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। প্রথম আন্তর্জাতিক ফ্লাইটটিও ছিল কাঠমান্ডুতেই। যদিও পৃথুলার পাইলট হওয়া পরিবারের অনেকেই পছন্দ করেনি। জীবনের শঙ্কা রয়েছে এমন একটা পেশায় যে তিনি যোগ দেবেন এটা অনেকেই মেনে নিতে পারেনি। বিবিসি বাংলাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা জানিয়েছেন পৃথুলার খালাতো বোন তাসমিন রহমান অমি।

তিনি বলেন, “ও জয়েন করার পর থেকেই আমরা এই ঝুঁকির বিষয়টা জানতাম। কিন্তু বেসিক্যালি, ও নিজে এই পেশায় যেতে চেয়েছিল।”

তাসমিন রহমান অমি বলেন, পৃথুলার মন ছিল খুবই অনুসন্ধিৎসু। নানা জিনিস সম্পর্কে তিনি জানতে চাইতেন। ছেলে বেলায় তিনি একবার নিজের ওপর পরীক্ষা করে দেখতে গিয়েছিলেন যে মারা গেলে কেমন লাগে। তার বাবা সে সময় বাসায় ছিলেন। তিনিই মেয়েকে বিপদের হাত থেকে বাঁচান।

তিনি বলেন, পৃথুলা রশীদ ছিলেন খুবই কোমল প্রাণের মানুষ। বাসায় খরগোশ, মাছ পুষতেন। রাস্তার কুকুরদের জন্য তার ছিল অসীম মায়া। একবার একটি কুকুরের শ্বাসকষ্ট দেখে বাবার ইনহেলার দিয়ে চিকিৎসা করেন।

অপি আরও বলেন, একবার এক চড়ুই পাখি ডানা ভেঙে বাসায় এসে পড়েছিল। অনেক যত্ন নিয়ে তিনি সেই পাখির শুশ্রূষা করেন। কিন্তু পাখিটি শেষ পর্যন্ত বাঁচেনি। এই শোকে পৃথুলা দুই-তিন দিন ভাল করে খাওয়া দাওয়া করতে পারেননি বলেও তিনি জানিয়েছেন।

“সে ছিল এমন এক মানুষ যার উপস্থিতি আপনার মনে ভাল করে দেয়ার জন্য যথেষ্ট,” বলছিলেন তিনি,” আপনার মন খুব খারাপ, কিন্তু ও এমন একটা কিছু করবে, বা এমন একটা কিছু বলবে, যাতে আপনার একদম মন ভাল হয়ে যাবে।”

The post চড়ুইপাখি মরে গেলে ক‍‍`দিন খায়নি পৃথুলা….. appeared first on Abegimon.com-Life Style News on Bangla.

Loading...