All Public examination Results

‘আমি পৃথুলার মতোই একজন পাইলট’








নেপালে ইউএস বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ফার্স্ট অফিসার পৃথুলা রশিদের স্মরণে ফেসবুকে একটি পেইজ খোলা হয়েছে, পেজটির নাম ‘পৃথুলার জন্য শ্রদ্ধা’ (Respect for Prithula)।

পৃথুলা রশিদ ১২ মার্চ নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিধ্বস্ত উড়োজাহাজটির সহকারি পাইলট হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন।দুর্ঘটনার সময় ঘটনাস্থলেই নিহত ইউএস বাংলার এই প্রথম নারী পাইলটের একা ১০ নেপালি যাত্রীকে বাঁচানোর ঘটনায় তাকে নিয়েই সরগরম ছিলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো।

এ কারণেই পৃথুলার প্রতি সম্মান জানাতে ফেসবুক পেজটি খোলা হয়েছে।

পেজের ‘পিনড পোস্ট’ এর বর্ণনায় বলা হয়েছে:

‘বাংলাদেশে এখনো কিছু পেশাকে নারীদের জন্য নিষিদ্ধ বলে ধরা হয়। সামাজিক রীতিনীতিকে ধরে রাখার চেষ্টায় বহু কিশোরী ও তরুণীকে যোগ্যতা ও তীব্র আকাঙ্ক্ষা থাকা সত্ত্বেও তাদের স্বপ্নের পেশা থেকে বঞ্চিত রাখা হয়।

এমনই তরুণীদের মাঝ থেকে উঠে এসেছিলেন পৃথুলা রশিদ।পৃথুলা রশিদ-শ্রদ্ধা-ফেসবুক পেজ

আরও দেখুনঃ

তিনি সাহস করেছিলেন উড়োজাহাজের পাইলট হওয়ার, যে পেশা বাংলাদেশে মূলত পুরুষদের দখলে। কিন্তু ২০১৮ সালের ১২ মার্চ পৃথুলা ফ্লাইট বিএস ২১১-এর সেই ৪৯ (বর্তমানে ৫০) জনের একজনে পরিণত হন, যারা কাঠমান্ডু বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিলেন। ৭১ আরোহী বহনকারী ওই প্লেনের সহকারি পাইলট ছিলেন পৃথুলা।

পৃথুলার মৃত্যু মানে শুধু তার জীবনের অবসান নয়। এর আরও একটা মানে হলো, তার চলে যাওয়ার ঘটনায় একই রকম স্বপ্ন নিয়ে তৈরি হওয়া তরুণীদের ভয় পাইয়ে দিতে পারে এবং অনতিক্রম্য কিছু পরিস্থিতি তাদের সামনে দাঁড় করাতে পারে।

কিন্তু আমরা এই দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে পারি। আমরা এই প্রকৃত বীরকে সম্মান জানাতে পারি। যেন তার মতো আরও লাখো নারী ‘সাধারণ স্বপ্নের’ বাইরে পা রাখার সাহস করতে এবং সমাজের চিরাচরিত অবস্থাকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে; শুধু বাংলাদেশ বা দক্ষিণ এশিয়ায় না, পুরো পৃথিবী জুড়েই।’

এরপরে সবাইকে এই পেজের মাধ্যমে পৃথুলা রশিদকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে । তার জন্য পেজটিতে লাইক দিতে হবে। তারপর একটি জ্বলন্ত মোমবাতি হাতে নিয়ে তোলা নিজের একটি ছবি ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করতে হবে।ছবির সঙ্গে হ্যাশট্যাগ থাকবে #RespectForPrithula।

অন্যরাও যেন এই প্রচারণায় অংশ নিতে পারেন সেজন্য তাদেরকে জানাতে অংশগ্রহণকারীদের আহ্বান জানানো হয় পেজটিতে। ‘তার জন্য অন্তত এটুকু তো আমরা করতেই পারি।’পৃথুলা রশিদ-শ্রদ্ধা-ফেসবুক পেজ

মঙ্গলবারই এই হ্যাশট্যাগ প্রচারণার প্রথম পোস্টটি দিয়েছেন কানাডার টরোন্টোর এক নারী পাইলট। পাইলটের পোশাক পরে উড়োজাহাজের পাশে হাতে সাদা জ্বলন্ত মোমবাতি নিয়ে ছবি তুলে ফেসবুকে হ্যাশট্যাগসহ পোস্ট করেছেন তিনি। সঙ্গে লিখেছেন:

‘আমি টরোন্টো, কানাডা থেকে ক্যারেন স্মাইলি। আমি পৃথুলার মতোই একজন পাইলট ।’

১৮ মার্চ খোলা রেসপেক্ট ফর পৃথুলা পেজে দু’দিনে লাইক পড়েছে প্রায় সাড়ে ৭ হাজার।

Loading...